//যৌন অপরাধ: এমপির চিৎকারে থেমে গেল বিল পাস

যৌন অপরাধ: এমপির চিৎকারে থেমে গেল বিল পাস

‘আপস্কারটিং’কে বিশেষ যৌন অপরাধ হিসেবে গণ্য করতে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে বিল আনা হয়েছিল। ওই বিল নিয়ে বিতর্কের শুরুতে একজন এমপি উঠে দাঁড়িয়ে ‘অবজেক্ট’ (আপত্তি) বলে চিৎকার দিলেন। এতেই বাতিল হয়ে গেল বিলটি। গত শুক্রবার ব্রিটিশ পার্লামেন্টে এই বিরল ঘটনা ঘটে।

স্কার্ট পরা নারীদের পোশাকের নিচ দিয়ে গোপনে ছবি তোলাকে বলা হচ্ছে আপস্কারটিং। যুক্তরাজ্য সংসদের রীতি অনুযায়ী, কোনো এমপির আনা ব্যক্তিগত বিলে কেবল একজন এমপি ‘অবজেক্ট’ বলে চিৎকার দিলে নাকচ হয়ে যায়। এই বিলের ক্ষেত্রে ক্ষমতাসীন কনজারভেটিভ পার্টির এমপি ক্রিস্টোফার ছোপ এই চিৎকার দেওয়ার কাজটি করেছেন। এ জন্য দলটিকে বেশ সমালোচনা সইতে হচ্ছে।
যুক্তরাজ্যের নারীদের আপস্কারটিংয়ের শিকার হওয়ার অভিযোগ বেশ পুরোনো। জিনা মার্টিন নামের এক তরুণী এমন আচরণের শিকার হওয়ার পর আপস্কারটিং বেশ আলোচিত হয়ে ওঠে। জিনা জানান, একদিন এক লোক গোপনে তাঁর স্কার্টের নিচ দিয়ে ছবি তোলে। বিষয়টি টের পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তিনি পুলিশের কাছে অভিযোগ করেন। অভিযুক্ত ব্যক্তিকে ধরা হয়, সেই ছবিও উদ্ধার করা হয়। কিন্তু পুলিশ জানায়, ওই লোকের বিরুদ্ধে তারা কোনো ব্যবস্থা নিতে পারবে না। কারণ, ছবিতে জিনাকে অন্তর্বাস পরা দেখা যাচ্ছে। এমন ছবি তোলার জন্য সাজা দেওয়ার কোনো নিয়ম নেই।

সেই থেকে জিনা মার্টিন আপস্কারটিংকে বিশেষ যৌন অপরাধ হিসেবে গণ্য করে আইন প্রণয়নের দাবিতে প্রচার শুরু করেন। বেশ সাড়া ফেলে তাঁর এই প্রচার। লিবারেল ডেমোক্র্যাট পার্টির এমপি ওয়েরা হোবহাউজ ‘ভোয়েরিজম (অফেন্স) বিল’ [voyeurism (offence) Bill] নামে একটি বিল পার্লামেন্টে তোলেন। ভোয়েরিজম হলো অপরের শরীরের গোপনাংশ দেখে যৌন তৃপ্তি পাওয়া। এই বিলে আপস্কারটিংয়ের বিষয়টি যুক্ত করার প্রস্তাব তোলেন তিনি।

শুক্রবার পার্লামেন্টে প্রস্তাবটির ওপর দ্বিতীয় ধাপের বিতর্কের শুরুতে ৭১ বছর বয়সী ক্রিস্টোফার ছোপ হুট করে ‘অবজেক্ট’ বলে চিৎকার করে উঠলে বিলটির আলোচনা থেমে যায়। এ সময় হাউস অব কমন্সের অন্য এমপিরা তাঁর এমন আপত্তিকে ধিক্কার জানিয়ে ‘শেম’ ‘শেম’ (লজ্জা, লজ্জা) বলে আওয়াজ তোলেন। সরকারি ও বিরোধী—সব দলের এমপি ক্রিস্টোফারের ওই আপত্তির সমালোচনা করেন।
ভুক্তভোগী জিনা মার্টিন বিবিসিকে বলেন, ক্রিস্টোফার ছোপ পরে দুঃখ প্রকাশ করে তাঁকে বলেছেন যে আপস্কারটিং বিষয়ে তিনি ঠিকমতো জানতেন না। বিলটি পুনরায় পার্লামেন্টে উঠবে এবং এটি পাস হবে বলে আশাবাদী জিনা।
আজ রোববার বিবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে বলেছেন, আপস্কারটিং বিষয়টি চরম বিরক্তিকর ও জঘন্য। প্রয়োজনে সরকারিভাবে প্রস্তাব এনে বিলটি পাস করার উদ্যোগ নেবেন বলে আশ্বস্ত করেন তিনি।

By |2018-06-18T04:35:45+00:00June 18th, 2018|আন্তর্জাতিক|0 Comments

About the Author:

Leave A Comment